বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০২৪

কক্সবাজার-১ আসন : র‌্যাবের উপর হামলার ঘটনায় এমপি জাফরের ভাতিজাসহ ৬০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা

সিসিএন নিউজ ডেস্ক :
নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই কক্সবাজারের-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বাড়ছে। গত দু’দিনে চকরিয়ায় পৃথক দু’টি ঘটনা ঘটেছে। এসবের মধ্যে একটি ঘটনায় ৬০০ জনের বিরুদ্ধে র‌্যাব একটি মামলা দায়ের করেছে। ইতিমধ্যে গ্রেফতারও হয়েছে ২ সন্ত্রাসী।

পুলিশ জানিয়েছে, রবিবার সকালে চকরিয়ার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের সওদাগরঘোনা নামক একটি গ্রামে হত্যা ও ডাকাতি মামলার ৩ জন পলাতক দুর্ধর্ষ আসামি ধরতে গেলে র‌্যাবের উপর হামলা চালায় গ্রামের সন্ত্রাসীরা। ওই হামলায় নেতৃত্ব দেন কক্সবাজার-১ চকরিয়া-পেকুয়া আসনের মনোনয়ন বঞ্চিত এমপি ও বর্তমানে স্বতন্ত্র এমপি প্রার্থী জাফর আলমের ভাতিজা এবং চকরিয়া পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলার জিয়াবুল হকসহ এলাকার আরো ২ জন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার।

র‌্যাব-১৫ ব্যাটালিয়ানের জ্যেষ্ঠ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো আবু সালাম চৌধুরী জানান, আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে র‌্যাবের উপর হামলা চালালেও জানমাল রক্ষার্থে র‌্যাব সদস্যরা পাল্টা ব্যবস্থা ব্যতিরেকে ফিরে যান।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী জানান, র‌্যাবের পক্ষ থেকে এ ঘটনার ব্যাপারে সোমবার ৩৩ জন সন্ত্রাসীর নাম উল্লেখসহ ৬০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় এমপি জাফর আলমের ভাতিজা জিয়াবুল হকসহ সুরাজপুর-মানিকপুর ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার জাহেদ সিকদার ও চিরিঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার রেজাউল করিমকেও আসামি করা হয়েছে। তারা ৩ জনের বিরুদ্ধে হত্যা ও ডাকাতিসহ আরো বহু মামলা রয়েছে। পুলিশ সোমবার অভিযান চালিয়ে রিদুয়ানুল ইসলাম হিরো এবং মোবারক হোসেন ছুট্টু নামের ২ সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে।

এদিকে কক্সবাজার-১ আসনের হাতঘড়ি প্রতীকের প্রার্থী বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিমের নির্বাচনী প্রচারণার অফিস পুড়িয়ে দিয়েছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। এসময় পাশের একটি দোকানও পুড়ে গেছে। রবিবার গভীর রাতে চকরিয়া উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের খোজাখালী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানান চকরিয়ার ইউএনও মো. ফখরুল ইসলাম। ইউএনও আরো জানান, সোমবার সকালে ঘটনার খবর পেয়ে তিনিসহ পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। কে বা কারা আগুন লাগিয়েছে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। কল্যাণ পার্টির দপ্তর সম্পাদক আল আমিন ভূঁইয়া রিপন বাদী হয়ে অভিযোগটি দায়ের করেন। মামলায় কৈয়ারবিল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানসহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে আসামি করা হয়েছে অজ্ঞাত আরো ২০ জনকে।

এই বিষয়ে চকরিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ আলী জানান, ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান ও হাত ঘড়ি প্রতীকের প্রার্থী সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, রবিবার গভীর রাতে চকরিয়ার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের খোজাখালী সিএনজি স্টেশনের কাছে হাতঘড়ি প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারণার অফিসে কে বা কারা আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন চকরিয়া উপজেলার ফায়ার সার্ভিস স্টেশনকে খবর দেয়। প্রায় আধাঘণ্টা পর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। তার আগেই আগুনে ১টি সার এবং কীটনাশকের দোকান এবং নির্বাচনী অফিস সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। আগুনে দোকানের মালামাল ছাড়াও নির্বাচনী অফিসের পোস্টার লিফলেট সহ প্রচুর নির্বাচনী সরঞ্জাম পুড়ে গেছে। তিনি ঘটনার জন্য অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাক গাড়ি প্রতীকের প্রার্থী এমপি জাফর আলমের সমর্থিত লোকজন জড়িত বলে সন্দেহ করে আসছেন।

আরও

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ খবর