বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০২৪

কোস্টগার্ডের অভিযানে আইস,মদ-বিয়ার ও মিয়ানমারে পাচারকালে অকটেন, খাদ্যসামগ্রীসহ আটক ১৯

ওবাইদুর রহমান নয়ন,টেকনাফ প্রতিনিধি:

টেকনাফের লম্বরি ঘাটে ও সেন্টমার্টিনের ছেঁড়াদ্বীপ পৃথক অভিযানে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে মিয়ানমারে পাচারকালে অকটেন, খাদ্যসামগ্রী ও ১ কেজি ক্রিস্টাল মেথ (আইস), ২৮৫ বোতল বিদেশি মদ ও ৩৩৫ ক্যান বিয়ার জব্দ করেছে কোস্টগার্ড। এসময় ১৯ জন পাচারকারীকে আটক করা হয়েছে।

২৫ ডিসেম্বর সোমবার বিকেলে টেকনাফ কোস্টগার্ডের স্টেশন কমান্ডার লুৎলাহিল মাজিদ এক প্রেস বিফ্রিংয়ের মাধ্যমে এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) ভোরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাদকের একটি চালান মিয়ানমার থেকে সেন্টমার্টিনের ছেঁড়া দ্বীপ হয়ে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে পাচার হবে।

এমন সংবাদের ভিত্তিতে বাংলাদেশ কোস্টগার্ড সেন্টমার্টিন ছেঁড়াদ্বীপ এলাকায় একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযান চলাকালীন ছেঁড়াদ্বীপ কেয়া বনের মধ্যে পাচারের উদ্দেশ্যে অভিনব কায়দায় লুকায়িত অবস্থায় ৩১টি ধূসর রঙের পরিত্যক্ত বস্তা দেখতে পাওয়া যায়। পরবর্তীতে কোস্টগার্ড সদস্যরা বস্তাগুলো তল্লাশি চালিয়ে ১কেজি ক্রিস্টাল মেথ (আইস), ২৮৫ বোতল বিদেশি মদ ও ৩৩৫ ক্যান বিয়ার জব্দ করা হয়। উক্ত স্থানে কোন পাচারকারী না থাকায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। জব্দকৃত ক্রিস্টাল মেথ (আইস), বিদেশি মদ ও বিয়ার পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়।

এছাড়া অপরদিকে একইদিনে গোপন সংবাদের টেকনাফ থানাধীন লম্বরি ঘাট থেকে কাঠের বোট যোগে বিভিন্ন প্রকার খাদ্যদ্রব্য ও তৈল শুল্ক ফাঁকি দিয়ে মিয়ানমারে পাচার করা হবে, এমন সংবাদের ভিত্তিতে বাংলাদেশ কোস্টগার্ড পূর্ব জোন অধিনস্থ বিসিজি স্টেশন টেকনাফ কর্তৃক উক্ত এলাকায় একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযান চলাকালীন সময়ে টেকনাফ লম্বরি ঘাট থেকে কয়েকটি কাঠের বোটকে মিয়ানমারের উদ্দেশ্যে যেতে দেখা যায়। এসময় কোস্ট গার্ড সদস্যরা উক্ত বোটগুলোকে ধাওয়া করে আটক করা হয় এবং বোটগুলো তল্লাশি চালিয়ে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে মিয়ানমার পাচারের উদ্দেশ্যে বোটে রাখা ১৫ বস্তা শুকনা মরিচ, ৪০ বস্তা পেঁয়াজ, ১বস্তা তামাক পাতা, ৩ বস্তা টেস্টিং সল্ট, ১ হাজার ৮২১ লিটার অকটেন, ৩ হাজার ৭৫২ লিটার সয়াবিন তেল, ১৩৬ লিটার ডিজেলসহ ১৯ জন পাচারকারীকে আটক করা হয়।

তিনি আরো জানান,পরবর্তীতে জব্দকৃত মালামাল ও আটককৃত ব্যক্তিদের আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য টেকনাফ শুল্ক গুদামে ও পাচারকারী ১৯ জনকে টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়।

আরও

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ খবর