শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪

টেকনাফে স্বামীর সাথে অভিমান করে বিষপান সন্তানসহ গৃহবধূর পুকুরে ঝাপ

ওবাইদুর রহমান নয়ন, টেকনাফ প্রতিনিধি:

পরিবারিক বিরোধের জের ধরে স্বামীর সঙ্গে অভিমান করে ২ সন্তান সহ পুকুরে ঝাপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছে গৃহবধু রুমানা আক্তার রুনি (৩২)।

এ ঘটনায় গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করা হলেও নিখোঁজ রয়েছে ৪০ দিন বয়সী রুবি নামে শিশু। মুমূর্ষু অবস্থায় মোঃ ইয়াছিন (৫) কে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড বেইংগাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

উদ্ধার গৃহবধূর রুমানা আক্তার রুনি (৩২) সাবরাং ইউনিয়নের বেইংগাপাড়া বাসিন্দা আবদুর রাজ্জাকের স্ত্রী। সে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের নাজিরপাড়া এলাকার মৃত নজির আহমদের মেয়ে।

ইউপি সদস্য মো. সেলিম আত্মীয়স্বজনের বরাত দিয়ে সিসিএনকে জানায়, পারিবারিক কলহের জেরে এক মাস ধরে গৃহবধূর স্বামী আবদুর রাজ্জাককে এলাকায় দেখা যাচ্ছে না। স্বামীর ওপর অভিমান করে দুই ছেলে-মেয়েকে বিষপান করিয়ে এবং নিজে বিষপান করে আত্মহত্যা করতে পুকুরে ঝাঁপ দেন ওই গৃহবধূ। গৃহবধূর ছেলের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে মো. ইয়াছিনকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দুপুরে পুকুর গৃহবধূর মৃতদেহ থেকে উদ্ধার করেন।

আব্দুর রাজ্জাকের আরেক ছেলে মোহাম্মদ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে তার বাবা পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন না। তাদের খাবারের ব্যবস্থাও করে দিচ্ছেন না। এক মাস যাবত বাবা বাড়িতেও আসছেন না। মা ফোন করলে বাবা অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন। আজ সকালে তাদের মা তিন ভাই-বোনকে ওষুধ খাওয়ানোর চেষ্টা করেন। ওষুধ মুখে দেওয়ার সময় গন্ধ পেয়ে সে না খেয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে ছোট দুই ভাই-বোনকে ওষুধ খাইয়ে দুজনকে নিয়ে পুকুরে ঝাঁপ দেন মা। এ সময় সে চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজন পুকুর থেকে ছোট ভাই ইয়াছিনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে জানার জন্য আবদুর রাজ্জাকের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রিয়াদ মাহমুদ সাঈদ চৌধুরী বলেন, বেলা ১১টার দিকে মুমূর্ষু অবস্থায় মো. ইয়াছিন নামের এক শিশুকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

টেকনাফ ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের দলপতির অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা উত্তম কুমার ব্যানার্জি বলেন, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে রুমানা আক্তারকে মৃত অবস্থায় পুকুর থেকে উদ্ধার করেন। তবে ৪০ দিনের শিশুকে এখনো উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

টেকনাফ মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন মজুমদার বলেন,এ ঘটনায় এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে একজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে, আরেক জনের এখনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। গৃহবধূর লাশ ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

আরও

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ খবর