শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪

প্রধানমন্ত্রীর ‘এ’ টিম ‘বি’ টিম

সিসিএন অনলাইন ডেস্ক:

এবারের সংসদের প্রায় সব স্বতন্ত্র আইনপ্রণেতাই স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হতে চান না এবং তারা দাবি করেছেন যে তারা আওয়ামী লীগের কেউ নয় এমন ধারণা তাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণের মতো।

তারা সংসদ নেতা শেখ হাসিনাকে ট্রেজারি বেঞ্চে তাদের বসতে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন কারণ তারা বিশ্বাস করে যে তারা প্রথমে আওয়ামী লীগ নেতা এবং পরে আইন প্রণেতা।

জবাবে শেখ হাসিনা তাদের সংসদে স্বাধীনভাবে ভূমিকা পালন করতে এবং সরকারের গঠনমূলক সমালোচনা করতে বলেছেন বলে গতকাল রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যদের বৈঠকে থাকা সূত্র জানায়।

সংসদে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের স্বাধীনভাবে ভূমিকা পালনের নির্দেশ দিলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগই সংরক্ষিত আসনে নারী সংসদ সদস্য নির্বাচন করবে যে আসনগুলোর দাবিদার স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগ থেকে নিয়োগ পাওয়া পাঁচ হুইপ স্বতন্ত্র প্রার্থীদের হুইপ হিসেবেও কাজ করবেন।

সংসদে ক্ষমতাসীন দলের সাথে থাকার জন্য স্বতন্ত্রদের অনুরোধের জবাবে, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা তাদের বলেছেন যে তিনি সকলের। বৈঠক সূত্র জানায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যরা তার ডান ও বাম হাতের মতো।

এক স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য শেখ হাসিনাকে উদ্ধৃত করে বলেন, ‘একটি আমার টিম ‘এ’ এবং অন্যটি আমার ‘বি’ টিম।

বর্তমান সংসদে ৬২ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন এবং তাদের মধ্যে ৫৭ জন আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা।

বিএনপিসহ বড় রাজনৈতিক দলগুলো ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক করতে এবং ভোটার উপস্থিতি বাড়াতে দলীয় নেতাদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ দেন আওয়ামী লীগ প্রধান।

ফলে ২৯৯টি আসনের মধ্যে ১৮১টি আসনে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন তৃণমূলে আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মীরা।

৩০০ আসনের মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থীর মৃত্যুতে নওগাঁ-২ আসনে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়।

গতরাতের বৈঠকে অধিকাংশ স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ সভাপতির সঙ্গে কথা বলেছেন এবং সংরক্ষিত আসনে নারীদের নির্বাচিত করার দায়িত্ব তার ওপর ন্যস্ত করেছেন।

সূত্র জানায়, শেখ হাসিনা তাদের প্রস্তাবে সম্মতি জানিয়ে বলেন, এটি আওয়ামী লীগের অনেক প্রবীণ ও নিবেদিতপ্রাণ নেতা এবং দলে অবদান রেখেছেন এমন পেশাজীবীদের উত্তরসূরি মূল্যায়নে সহায়ক হবে।

এতে পার্লামেন্টের ৩৪৯টি আসনের মধ্যে ২৭০টি আসনই পাবে আওয়ামী লীগ।

জাতীয় সংসদ (সংরক্ষিত মহিলা আসন) নির্বাচন আইন অনুযায়ী, সাধারণ নির্বাচনে ৫০টি সংরক্ষিত নারী আসন আনুপাতিক হারে বিজয়ী দল বা জোটের মধ্যে বণ্টন করা হয়।

৬২ জন স্বতন্ত্র আইনপ্রণেতা রয়েছেন এবং তারা সবাই নির্দলীয় জোট গঠন করলে তারা কমপক্ষে ১০টি আসন পাবেন। সাধারণত, একটি দল বা জোট প্রতি ছয়টি আসনে জয়ী হওয়ার জন্য একটি সংরক্ষিত আসন পায়।

এবার ২২৩টি আসনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হওয়ায় এবার দলটি অন্তত ৩৭টি সংরক্ষিত আসন পাবে। প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি ১১টি আসনে জয়ী হওয়ায় সংরক্ষিত নারী আসন পাবে ২টি।

সূত্র জানায়, মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ও দলের প্রার্থী মৃণাল কান্তি দাসকে পরাজিত করা স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মোহাম্মদ ফয়সল বিপ্লব সভায় জানান, তিনি আওয়ামী লীগের সঙ্গে থাকতে চান, কারণ তার প্রথম পরিচয় আওয়ামী লীগের সদস্য এবং তার দ্বিতীয় পরিচয় সংসদ সদস্য।

নেত্রকোনা-৩ আসনের স্বতন্ত্র, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ও দলীয় মনোনীত প্রার্থী অসীম কুমার উকিলকে পরাজিত করা ইফতিকার উদ্দিন তালুকদার পিন্টু বলেন, তিনি আওয়ামী লীগের বাইরে যেতে চান না, আজীবন দলের সঙ্গে থাকতে চান।

বরিশাল-৪ আসনের স্বতন্ত্র পঙ্কজ দেবনাথ বৈঠকে জানান, তার আসনে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী না থাকায় তিনি আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক ‘নৌকা’র বিরুদ্ধে লড়েননি।

ফরিদপুর-৪ আসন থেকে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহকে পরাজিত করে স্বতন্ত্র মজিবর রহমান চৌধুরী ওরফে নিক্সন চৌধুরী সভায় বলেন, তারা সবাই আওয়ামী লীগের সদস্য এবং সংসদে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিত্ব করতে চান।

গাজীপুর-৫ আসনে তিন বারের সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের প্রার্থী মেহের আফরোজ চুমকিকে পরাজিত করে আওয়ামী লীগ নেতা আখতারুজ্জামান বলেন, শেখ হাসিনা প্রমাণ করেছেন তিনি পৃথিবীর অন্যতম সেরা নেতা এবং বিশ্বকে নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন। তাই তার নেতৃত্বে কাজ করতে চান তিনি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বদরুদ্দোজা ফরহাদ হোসেনকে পরাজিত করে বিএনপি চেয়ারপারসনের সাবেক উপদেষ্টা সৈয়দ এ কে একরামুজ্জামান বলেছেন, তিনি আওয়ামী লীগের অংশ ছিলেন এবং দল ছেড়ে ভুল করেছেন। এক স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য জানান একরামুজ্জামান বলেছেন, ‘আমি ঘরে ফিরে এসেছি এবং আপনার (শেখ হাসিনার) নেতৃত্বে কাজ করতে চাই।’

জবাবে শেখ হাসিনাকে উদ্ধৃত করে একটি সূত্র জানায়, ‘আপনি আমাদের।’

এক পর্যায়ে ৭ জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষের কথা উল্লেখ করে তাদের সতর্ক করেন দলের প্রধান।

তিনি বলেন, তিনি কোথাও কোনো অন্তর্দ্বন্দ্বের কথা শুনতে চান না। তিনি বলেন, ‘আপনারা সবাই আওয়ামী লীগ। অন্তর্দ্বন্দ্বে জড়াবেন না। ঐক্যবদ্ধ থাকুন,’ শেখ হাসিনাকে উদ্ধৃত করে বৈঠকে অংশগ্রহণকারী একজন একথা বলেন।

সূত্র:  দ্য ডেইলি স্টার বাংলা

আরও

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ খবর