বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫, ২০২৪

বিশ্বে সাত কোটি মেয়ে শিক্ষার্থী ক্ষুধার্ত অবস্থায় স্কুলে যায়

সিসিএন অনলাইন ডেস্কঃ

গত জুলাই মাসের ২৪ থেকে ২৬ তারিখ পর্যন্ত ইতালির রোমে জাতিসংঘের আয়োজনে আন্তর্জাতিক ফুড সিস্টেম সামিট ২০২৩ অনুষ্ঠিত হয়। সামিটে বিশ্বব্যাপী শিশুরা যে অপুষ্টিতে ভুগছে তা দূর করার জন্য বিভিন্ন দেশের প্রাক-প্রাথমিক এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে স্কুল মিল কর্মসূচি চালু করা হয় এবং মূলত এর সফলতার দিক বিবেচনায় নিয়ে দেশে বিস্তৃতভাবে এটি চালু করার জন্য জাতিসংঘের পক্ষ থেকে আহবান জানানো হয়। পূর্ববর্তী সামিটে স্কুল মিল চালু করা সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে নিয়ে একটি স্কুল মিল কোয়ালিশন গঠন করা হয়। বাংলাদেশ স্কুল মিলস কোয়ালিশন এর ৮৫তম সদস্য রাষ্ট্র।

জাতিসংঘের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল আমিনা মোহাম্মদ বলেন, স্কুল ফিডিং কর্মসূচিতে খাদ্য ব্যবস্থার সমস্যাগুলো নিরসনে একটি অতুলনীয় সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি আরও বলেন, আমরা অনেকদূর এগিয়েছি কিন্তু লাখ লাখ দুর্বল শিশু এখনো স্কুল ফিডিং কর্মসূচিতে আসতে পারেনি। আফ্রিকাবিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ উপদেষ্টা ক্রিস্টিনা ডুয়ার্ডেও স্কুল ফিডিং কর্মসূচি বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়ে বলেন, স্কুল ফিডিং কোনো পাবলিক খরচ নয় বরং একটি বিনিয়োগ।

অপুষ্টির অনেক অন্তর্নিহীত কারণ রয়েছে যার মধ্যে দারিদ্র্যতা অন্যতম। সেইসাথে অধিকাংশ পরিবার শিশুর শারীরিক ও মেধার বিকাশে মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টের ভূমিকা বা গুরুত্ব সম্পর্কেও সচেতন নয়। ভাত কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ আমাদের প্রধান খাবার, যার ওপর শিশুরা বেশি নির্ভরশীল অথচ মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টের দিক দিয়ে অত্যন্ত কম। ভালো পুষ্টির জন্য মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট সমৃদ্ধ বৈচিত্র্যময় খাদ্য প্রয়োজন। মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট ফর্টিফাইড স্কুলের খাবার শিশুদের খাদ্যের চ্যালেঞ্জগুলো কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করবে। পুষ্টিকর খাবার শিশুদের শারীরিক বৃদ্ধি, মানসিক বিকাশ এবং সুস্থ স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

বৈশ্বিক খাদ্য ব্যবস্থার মুখোমুখি চ্যালেঞ্জগুলো স্তূপাকার হয়ে উঠছে এবং অসামঞ্জস্যপূর্ণভাবে শিশুদের প্রভাবিত করছে। ইতালির রোমে হয়ে যাওয়া ফুড সিস্টেম সামিটে যে চিত্র উঠে এসেছে তা অত্যন্ত ভয়াবহ। অদ্যাবধি ৩ বিলিয়ন মানুষ নিম্ন মানের খাবার গ্রহণ করছে। নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে অর্ধেকেরও বেশি কিশোরী তাদের প্রয়োজনীয় মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট চাহিদা পূরণ করছে না। তীব্র খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা ১৫৩ মিলিয়ন শিশুকে প্রভাবিত করছে এবং এ সংখ্যা আক্রান্ত সব মানুষের প্রায় অর্ধেক। সামিটের তথ্য অনুযায়ী, আমরা আধুনিক ইতিহাসের সবচেয়ে গভীর শিক্ষা সংকটের মধ্য দিয়ে বসবাস করছি। নিম্ন আয়ের দেশগুলোতে ১০ বছর বয়সীদের প্রায় ৭০ শতাংশ একটি সাধারণ বাক্য পড়তে বা লিখতে পারে না এবং নিম্ন আয়ের দেশগুলোর প্রায় ৭৩ মিলিয়ন স্কুলছাত্রী ক্ষুধার্ত অবস্থায় স্কুলে যায়।

স্টান্টিং জাতীয় অর্থনীতির বৃদ্ধি এবং সমৃদ্ধির জন্য নীরব হুমকি, বিশ্বজুড়ে লাখ লাখ শিশুর স্বাস্থ্য এবং বিকাশের ওপর প্রভাব ফেলেছে। বিশ্বব্যাংকের তথ্যমতে, ২০২২ সালে ৫ বছরের কম বয়সী ১৪৮.১ মিলিয়ন শিশু স্টান্টিংয়ের শিকার হয়েছে, যা বিশ্বব্যাপী এই ঝুঁকিপূর্ণ বয়সের প্রতি ৫ জন শিশুর মধ্যে একজন এই ঝুঁকির মধ্যে পড়ে। বলা যায় যে, আমরা ২০৩০ সালের মধ্যে স্টান্টিং হারকে অর্ধেক করার জন্য প্রয়োজনীয় গতিপথ থেকে আরও দূরে সরে যাচ্ছি। FAO এর তথ্যমতে, ২০২০ সালে বিশ্বব্যাপী ৫ বছরের কম বয়সী শিশুদের মধ্যে আনুমানিক ১৪৯ মিলিয়ন (২২ শতাংশ) স্টান্টেড, ৪৫ মিলিয়ন (৬.৭ শতাংশ) ওয়াস্টেড এবং ৩৯ মিলিয়ন (৫.৭ শতাংশ) অতিরিক্ত ওজনের ছিল।

সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে স্কুলশিশুদের জন্য পুষ্টি সমৃদ্ধ গুঁড়া দুধ দিয়ে সর্বপ্রথম স্কুল ফিডিং কর্মসূচি চালু করেছিলেন যদিও পরবর্তীতে এটি বন্ধ হয়ে যায়। স্কুল ফিডিং কর্মসূচির মূল উদ্দেশ্য হলো- প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের মাঝে পুষ্টি সমৃদ্ধ খাদ্য ব্যবস্থার মাধ্যমে শিশু অপুষ্টি দূর করা এবং দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শিশুদের উপস্থিতির হার বাড়িয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সমাপ্তির হার বৃদ্ধি করা।

বাংলাদেশে মোট প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১,১৮,৮৯১টি। যেখানে অধ্যয়নরত ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ২২ মিলিয়ন। বাংলাদেশ সরকার ২০১০ সালে দেশের ১০৪টি উপজেলায় ১৫,০০০ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্কুল ফিডিং প্রোগ্রাম চালু করে। যার মাধ্যমে প্রায় ২৩ লাখ শিক্ষার্থী বিনামূল্যে খাবার পায়। সম্প্রতি সরকারের সাথে ডব্লিউএফপি’র নুতন চুক্তি হয়। যার মাধ্যমে দেশের ১৫০টির ও বেশি উপজেলায় স্কুল ফিডিং কার্যক্রম চলবে এবং মোট সুবিধাভোগীর সংখ্যা ৩৭ লাখে উন্নীত করা হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন বলেন, স্কুল ফিডিংয়ের কারণে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ঝরে পড়ার হার ৭.৫ শতাংশ কমেছে এবং বিদ্যালয়ে উপস্থিতির হার ১৪ শতাংশ বেড়েছে।

গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ খাদ্য উৎপাদন ও শিক্ষাক্ষেত্রে ব্যাপক অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। ফলে দেশে দারিদ্র্য হ্রাস ও শিশুর পুষ্টি, মৃত্যুহারের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে। বাংলাদেশের জনসংখ্যার মধ্যে প্রায় ৩০ শতাংশ তরুণ (১০-২৪ বছর)। এই তরুণরাই আগামী দিনে দেশের উৎপাদনশীলতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। তবে এ জন্য তরুণদের দক্ষভাবে তৈরি করা অত্যন্ত জরুরি। শিক্ষা এই দক্ষতা তৈরির অন্যতম হাতিয়ার। বর্তমান সরকার মানসম্পন্ন শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দিয়েছে। তবে মানসম্পন্ন শিক্ষার সাথে স্কুল মিলস কর্মসূচি অত্যন্ত সহায়ক একটি কর্মসূচি। স্কুল মিল প্রোগ্রাম পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা পূরণে ভূমিকা রাখে যা শিশুদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে অবদান রাখে এবং এ জন্য শিশুদের বর্তমান ও ভবিষ্যতের জ্ঞানীয় অর্জন এবং উৎপাদনশীলতায়ও অবদান রাখে।

স্কুল মিল প্রোগ্রামের উদ্দেশ্যাবলি:

১. প্রাক-প্রাথমিক এবং প্রাথমিক স্তরের সব শিশুকে স্কুলে ভর্তি করা, স্কুলে উপস্থিতি বাড়ানো, পাঠে মনোযোগ বাড়ানো এবং স্কুলে শিশুদের ধরে রাখার ক্ষমতা বাড়ানো।

২. খাদ্য সরবরাহের মানসম্মত পদ্ধতি প্রণয়ন এবং প্রয়োগ করা যা শিশুদের জন্য নিরাপদ ও স্বাস্থ্য ঝুঁকিমুক্ত হয়।

৩. স্কুলের দিনের ক্ষুধা দূর করে স্কুলে ছাত্র-শিক্ষক যোগাযোগের সময়কাল এবং গুণমান বৃদ্ধি করা যাতে শিক্ষার্থীরা ক্ষুধামুক্ত, আনন্দদায়ক এবং অনুকূল পরিবেশে শিখতে পারে।

৪. স্কুলে শিশুদের পুষ্টির চাহিদা পূরণে ঐতিহ্যবাহী খাদ্যাভাস, সংস্কৃতি ও দেশীয় মূল্যবোধ সংরক্ষণে স্থানীয় সম্প্রদায়কে সম্পৃক্ত করা। এভাবে স্বাস্থ্যকর, সক্ষম ও মেধাবী মানবসম্পদের জন্য শক্তিশালী ভিত্তি তৈরি করতে সহায়তা করা।

গত কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশের স্থির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বজায় থাকায় মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। দেশের প্রাক-প্রাথমিক এবং প্রাথমিক বয়সের প্রায় ২২ মিলিয়ন শিশুর মধ্যে তালিকাভুক্তির হার ৯৫ শতাংশের বেশি রাখা, সেইসাথে মানসম্পন্ন শিক্ষার ব্যবস্থা বাংলাদেশ সরকারের জন্য প্রধান চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। স্কুল ফিডিং প্রোগ্রামের মাধ্যমে ক্ষুধা হ্রাস প্রাথমিক শিক্ষার সার্বজনীন কভারেজ পৌঁছানোর জন্য, ছেলেমেয়েদের দীর্ঘ সময়ের জন্য স্কুলে রাখা এবং ঝরে পড়ার হার কমানোর পাশাপাশি সামাজিক, লিঙ্গ ও আঞ্চলিক বৈষম্য কমাতে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে।

বাংলাদেশ সরকারের সহায়তায় ২০০১ সালে ডব্লিউএফপি মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট ফর্টিফাইড বিস্কুট দিয়ে স্কুল ফিডিং প্রোগ্রাম সীমিত আকারে চালু করে এবং এর উদ্দেশ্য ছিল স্কুলে তালিকাভুক্তির হার বাড়ানো, মনোযোগ ও স্কুলে ধরে রাখার উন্নতি করা এবং স্কুল বয়সী শিশুদের মধ্যে অপুষ্টি কমানো। এরপর ২০১১ সালে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে শিশুদের জন্য পুষ্টি নিরাপত্তা বেষ্টনীর জন্য দরিদ্রপ্রবণ এলাকায় স্কুল ফিডিং প্রোগ্রাম (SFPPA) চালু করে। স্কুল ফিডিং প্রোগ্রামের ইতিবাচক ফলের ভিত্তিতে সরকার বিস্কুটের পরিবর্তে হোম গ্রোন স্কুল ফিডিং (HGSF) চালু করার প্রয়োজনীয়তা অনুধাবন করে। HGSF পদ্ধতিটি সরকার কর্তৃক গৃহীত হয়েছে যা ২০১৩ সালে GAIN Bangladesh এবং ডব্লিউএফপি পদ্ধতিটি দেশের কিছু এলাকায় পরীক্ষামূলকভাবে চালু করে।

ইতিমধ্যে সরকার হোম গ্রোন স্কুল ফিডিং মডেলটি সারা দেশে বাস্তবায়ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যার মাধ্যমে ২০৩০ সালের মধ্যে জাতীয় স্কুল খাবার নীতির (NSMP) সাথে সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের কাছে পৌঁছানো। NSMP মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদিত হয়েছে। NSMP বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশের শিশুদের জন্য একটি নিরাপত্তা বেষ্টনী প্রদান করতে সক্ষম হবে, যারা এর মাধ্যমে তাদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের মাধ্যমে ভবিষ্যতে দেশের উন্নয়নে শক্তিশালী অংশীদার হিসেবে নিয়োজিত হবে।

ইউক্রেন সংঘাতের কারণে বিশ্বব্যাপী খাদ্যপণ্যের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গেছে এবং এর সরাসরি প্রভাব পড়েছে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর শিশুদের পুষ্টির ওপর। ফলে অনেক দেশই স্কুল মিল প্রোগ্রাম নিয়মিতভাবে চালাতে ব্যর্থ হবে প্রয়োজনীয় অর্থের অভাবে এবং এর দায়ভার থেকে জাতিসংঘ কখনোই এড়াতে পারে না। যেহেতু জাতিসংঘ বিশ্বের চলমান যুদ্ধ সংকট নিরসনে ব্যর্থ হয়েছে, সেহেতু এর ফলে আন্তর্জাতিক বাজারে কৃষিপণ্যের মূল্যের যে অস্থিরতা সেটার জন্যও জাতিসংঘ অনেকাংশেই দায়ী। কিন্তু এর ফলে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর শিশুরা ক্ষুধার্ত অবস্থায় স্কুলে যেতে পারে না। এসব দেশের শিশুরা কেন তার প্রয়োজনীয় খাবার থেকে বঞ্চিত হবে? তাই স্কুল মিল কোয়ালিশনে জাতিসংঘকে প্রয়োজনীয় তহবিল যথাসময়ে জোগান দেওয়ার ব্যবস্থা করা উচিত যাতে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর সরকার স্কুল মিল প্রোগ্রাম সফলভাবে চালাতে পারে।

বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশকে উন্নত দেশের তালিকায় নিয়ে যাওয়ার জন্য এসডিজি’র প্রতিটি লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য পরিকল্পিতভাবে নির্দিষ্ট কর্মসূচি নিয়ে তা বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন এবং সারা দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে স্কুল ফিডিং প্রোগ্রাম চালু করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ তার মধ্যে অন্যতম। GAIN Bangladesh প্রায় ১ যুগ ধরে বাংলাদেশে অপুষ্টি দূর করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে এবং স্কুল ফিডিং কর্মসূচিও পরীক্ষামূলকভাবে দেশের কয়েকটি উপজেলায় বাস্তবায়ন করেছে। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর বা বিভাগ স্কুল ফিডিং প্রোগ্রামে টেকনিক্যাল সহায়তার জন্য গেইন বাংলাদেশকে যুক্ত করতে পারে। সর্বোপরি, দেশব্যাপী স্কুল ফিডিং কর্মসূচি বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে আমরা যদি শিশুদের অপুষ্টি দূর করতে সমর্থ হই তাহলে অবশ্যই আমরা আগামীতে সমৃদ্ধ দেশ গড়ার জন্য মেধাবী জাতি পাব।

আরও

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ খবর